• ঢাকা
  • |
  • শুক্রবার ২৫শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ সন্ধ্যা ০৬:৫৩:৩৪ (09-Dec-2022)
  • - ৩৩° সে:

একসময় যে বলিউড সাউথ কে নিয়ে হাসাহাসি করত, আজ সেই বলিউড ধ্বংসের মুখে: যশ


বুধবার ৯ই নভেম্বর ২০২২ বিকাল ০৪:১৮



একসময় যে বলিউড সাউথ কে নিয়ে হাসাহাসি করত, আজ সেই বলিউড ধ্বংসের মুখে: যশ

যশ

বর্তমান সময়ে বলিউডের তুলনায় অনেকটা এগিয়ে রয়েছে দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি। বর্তমান সময়ে এই ইন্ডাস্ট্রির হাত ধরেই একটার পর একটা ছবি ব্লকবাস্টার হচ্ছে। এই পরিবর্তনটা করোনার পরবর্তী সময়ে আরো বেশি ঘটেছে। দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি বলিউডকে  পিছনে ফেলে ক্রমশ মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে বলিউড এখন ধুঁকছে। একটা সময় ছিল যখন দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিকে ছোট করে দেখা হতো। কিন্ত এখন বলিউডের তারকারাও টলিউডের ছবিতে কাজ করছেন। আর এই সুযোগেই বলিউডকে নিয়ে মন্তব্য করে বসলেন কেজিএফ স্টার যশ (Yash)। বললেন কি?  চলুন জেনে নেই।

কেজিএফ স্টার যশ

২০১৮ সালে মুক্তি পেয়েছিল ‘কেজিএফ চ্যাপ্টার ১’। এর পর থেকেই অভিনেতা যশের জনপ্রিয়তা বেশ বেড়ে যায়। কেজিএফ এর দ্বিতীয় চ্যাপ্টার মুক্তি পায় চলতি বছরের শুরুতে। ছবিটি রেকর্ড পরিমান আয় করেছে। হিন্দি সহ একাধিক ভাষায় এটি ডাব করা হয়েছে। এর হাত ধরেই জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌছেন অভিনেতা যশ। বর্তমানে এই দক্ষিণী তারকা মুম্বাইয়ে ঘুরতে গিয়েছেন। সেখানে এক সাংবাদিক সম্মেলনে অংশ নেন তিনি। এই সম্মেলনেই বলিউড সম্পর্কে নিজের মতামত রাখেন অভিনেতা।

যশ বলেন, একটা সময় ছিল যখন দক্ষিণী ছবির কোনো ভাবমূর্তি ছিল না। হিন্দি বলয়ে দক্ষিণী ছবিগুলিকে অবহেলার চোখে দেখা হতো। তখনও দক্ষিণী ছবি হিন্দিতে ডাব করা হতো। তবে ছবিগুলি জনপ্রিয়তার বদলে হয়ে যেত হাসির খোরাক। হিন্দিতে ভুলভাল ডাবিং করে সেটিকে আরো হাস্যকর করে তোলা হতো। তবে সময় পাল্টেছে। এখন দক্ষিণী ছবি মানেই হিট। আর এই পরিবর্তনে অন্যমাত্রা যোগ করেছেন পরিচালক এস এস রাজামৌলির। তাঁর পরিচালিত ‘বাহুবলী’ দক্ষিণী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে অনেকটা উন্নতির শিখরে পৌঁছে দেয়।

কেজিএফ স্টার যশ

সাংবাদিক সম্মেলনে অভিনেতা যশকে প্রশ্ন করা হয় যে তিনি কি মনে করেন যে, বলিউডের আজ তাকে প্রয়োজন? উত্তরে অভিনেতা বলেন, ‘এই মুহূর্তে দর্শকরা কেবল ভাল চলচ্চিত্র চায়। আমি বলিউডে বিশ্বাস করিনা। এখানে আমরা সবাই সম্মানের জন্য লড়াই করছি। আমাদের সাথে এমন ব্যবহার করুন যেভাবে এই দেশে প্রতিটি অভিনেতার সাথে আচরণ করা হয়।’ তিনি আরো বলেন যে, দক্ষিণী ছবিগুলি হিন্দিতে ডাবিং করা হচ্ছে। সেগুলি দারুন জনপ্রিয়তাও পাচ্ছে, যেটা আগে ছিল না। বর্তমানে দক্ষিণী ছবি ডাব করা নিয়ে বলিউডে প্রতিযোগিতা চলে। অভিনেতার মতে দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি উন্নত হচ্ছে, অন্যদিকে বলিউডে শেষ হচ্ছে।

মন্তব্য করুনঃ


সর্বশেষ সংবাদ