• ঢাকা
  • |
  • শনিবার ১৫ই মাঘ ১৪২৯ সকাল ১০:৪০:১৭ (28-Jan-2023)
  • - ৩৩° সে:

সুকেশ আমার জীবন নষ্ট করেছে: জ্যাকুলিন


বৃহঃস্পতিবার ১৯শে জানুয়ারী ২০২৩ বিকাল ০৩:১৯



সুকেশ আমার জীবন নষ্ট করেছে: জ্যাকুলিন

ছবি সংগৃহীত

বিনোদন ডেস্ক: 

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জ্যাকুলিন ফার্নান্ডেজ। অভিনয় জগতে নিজের শক্ত অবস্থান থাকলেও গেল বছরটা মোটেও ভালো যায়নি এই অভিনেত্রীর। বছরটিতে মুক্তি পেয়েছে তার চারটি ছবি। কিন্তু একটিও সফলতা পায়নি বক্স অফিসে। সেই সঙ্গে ২০০ কোটি টাকার তছরুপ মামলায়ও জড়িয়েছে তার নাম। 

এমনকি সুকেশ চন্দ্রশেখরের সঙ্গে তার সম্পর্ক নিয়েও ব্যাপক জলঘোলা হয়েছে। ইডি এবং আদালতে হাজিরা দিতে দিতেই তার বছর শেষ। সেই সঙ্গে ভারত ছাড়ার ওপরও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। বলা চলে, বছরটি ক্যারিয়ার ও ব্যক্তিজীবনে ব্যাপক ঝামেলার মধ্য দিয়েই গেছে জ্যাকুলিনের। 

সম্প্রতি দিল্লির পাতিয়ালা হাউজ কোর্টে চমকপ্রদ বয়ান দিয়েছেন জ্যাকুলিন। 

এ বিষয়ে সম্প্রতি ভারতীয় একাধিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায় বেশ কিছু তথ্য। কোর্টকে জ্যাকুলিন বলেন, সুকেশ আমার আবেগ নিয়ে খেলেছে এবং আমার জীবনটাকে নরক বানিয়ে দিয়েছে। ও আমাকে ভুল পথে চালিত করে আমার ক্যারিয়ার, আমার জীবনটাই তছনছ করে দিয়েছে। 

পিঙ্কি ইরানি নামে এক ব্যক্তির মাধ্যমে সুকেশের সঙ্গে পরিচয় হয় জ্যাকুলিনের। তা উল্লেখ করে জ্যাকুলিন বলেন, সুকেশ নিজেকে সান টিভির মালিক হিসেবে পরিচয় দিয়েছিলেন। দাবি করেছিলেন, তিনি তামিল নাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী জে জয়ললিতার আত্মীয়। এ-ও বলেছিলেন, তিনি আমার একজন ভক্ত। আমাকে বুঝিয়েছিলেন আমার দক্ষিণ ভারতের সিনেমা করা উচিত। নিজেকে সান টিভির মালিক পরিচয় দিয়ে বলেছিলেন, তাদের অনেকগুলো প্রকল্প রয়েছে। আমাদের দক্ষিণ ভারতীয় চলচ্চিত্রে একসঙ্গে কাজ করার চেষ্টা করা উচিত। 

জ্যাকুলিনের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য নিজের নাম বদলেছিলেন সুকেশ। নিজেকে শেখর নামে পরিচয় দিয়েছিলেন তিনি। জ্যাকুলিন বলেন, শেখর আমাকে ঠকিয়েছে। আমি যখন শেখরের বাস্তব জীবন জানতে পারি, তখনই জানতে পারি ওর আসল নাম সুকেশ।আড়ালের এসব বিষয় পুরোটাই জানতেন পিঙ্কি। কিন্তু ও ইচ্ছা করে এসব করেছে। 

জেল থেকেও জ্যাকুলিনকে ফোন করতেন সুকেশ। এ বিষয়ে আদালতকে জ্যাকুলিন বলেন, প্রতিদিন সকালে শুটিং শুরুর আগে আমাকে কল বা ভিডিও কল করতেন সুকেশ। কখনও কখনও রাতে ঘুমানোর আগেও কল করতেন। দিনে অন্তত তিনবার ফোন করতেন। কিন্তু কখনও বলতেন না তিনি জেলে আছেন। ভিডিও কলে কথা বলার সময়ে তার ব্যাকগ্রাউন্ডে পর্দা থাকত, সোফায় বসে কথা বলতেন। যা দেখে বোঝার উপায় ছিল না। 

প্রসঙ্গত, তবে নতুন বছরে ঘুরে দাঁড়ানোর মিশনে নেমেছেন তিনি। অভিনেত্রী বলেন, ক্যারিয়ারে উত্থান-পতন সবসময়ই থাকবে। কিন্তু আমি মোটেও ভেঙে পড়ার মানুষ নই। আমার নিজের ও ভক্ত-অনুরাগীদের ওপর দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে। অবশ্যই নতুন এ বছরে ভালো কিছুই আমার জন্য অপেক্ষায় আছে। বরাবরের মতো এবারও সবাই পাশে থাকবেন।

মন্তব্য করুনঃ


সর্বশেষ সংবাদ